কুমিল্লায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধ ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত : অস্ত্র-মাদক উদ্ধার

হালিম সৈকত, কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লায় মাদক বিরোধী অভিযান চলাকালে মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। এতে গুলিবিব্ধ হয়ে লিটন ওরফে কানা লিটন (৪৩) এবং বাতেন (৩৪) নামের ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এ নিয়ে কুমিল্লায় মোট ১২ জন মাদক ব্যবসায়ী কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে জেলার মুরাদনগর উপজেলার গুঞ্জর এলাকায় গোমতী প্রতিরক্ষা বাঁধের পাশে ভাই ভাই ব্রিক ফিল্ডের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে পুলিশের ৩ কর্মকর্তা।ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একটি পাইপগান ও ৪০০ বোতল ফেনসিডিল। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মঞ্জুর আলম।তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক উদ্ধার করতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মুরাদনগর সার্কেল) জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে তিনিসহ (ওসি) পুলিশের একটি দল মুরাদনগর উপজেলার গুঞ্জুর এলাকায় গোমতী বাঁধের পাশে অবস্থান নেন। সেখানে মাদক ব্যবসায়ী কানা লিটন ও বাতেনসহ তাদের সহযোগীরা পৌছলে তাদের আটকের চেষ্টাকালে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষায় ৫৩ রাউন্ড শাটগানের গুলি চালায়।এ সময় উভয় পক্ষের গুলি বিনিময়ে মাদক ব্যবসায়ী লিটন ও বাতেন গুলিবিব্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন। তাদেরকে উদ্ধার করে কুমেক হাসপাতালে নেয়ার পথে উভয়ের মৃত্যু হয়।নিহত লিটন উপজেলার পৈয়াপাথর এলাকার আবদুস ছামাদের ছেলে, তার বিরুদ্ধে ৭ টি মাদকের মামলা রয়েছে এবং বাতেন একই উপজেলার বাখরনগর গ্রামের সহিদ মিয়ার ছেলে, তার বিরুদ্ধে ৮টি মাদকের মামলা রয়েছে।ওসি আরও জানান, ওই অভিযানের সময় থানার এসআই মোজাম্মেল, এএসআই রোকন ও এএসআই মাসুদুর রহমান আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে ১ রাউন্ড কার্তুজসহ একটি পাইপগান,৪০০ বোতল ফেনসিডিল ও ১টি ছোরা উদ্ধার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত এক সপ্তাহে জেলার কোতয়ালীতে ৩ জন, চৌদ্দগ্রামে ১জন, সদর দক্ষিনে ২ জন, বুড়িচংয়ে ১ জন, ব্রাহ্মণপাড়ায় ২ জন এবং দেবিদ্বারে ১জন ও সর্বশেষ মুরাদনগরে ২জনসহ মোট ১২ জন মাদক ব্যবসায়ী কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য