উপজেলা আনসার ভিডিপির কর্মকর্তার দূর্নীতির কারনে কর্ম বঞ্চিত ট্রেনিং প্রাপ্ত নারী ও পুরুষ !!

মু. জিল্লুর রহমান জুয়েল, পটুয়াখালী।” বাংলার মাটি রাখিবো মুক্ত, শান্তি, শৃঙ্খলা, উন্নয়ন, নিরাপত্তায় সর্বদায় আমরা” সহ নানান নীতিকথা থাকলেও, দূর্নীতি থেকে আমরা এখনো মুক্তো হতে পারিনি। যার প্রভাবে বাদ যায়নি
পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যের নারী ও পুরুষ। তথ্য ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর গলাচিপা উপজেলা কর্মকর্তা, মোঃ চুন্নু আহমেদ আসার পর থেকেই, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর, সদস্যদের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশলে উৎকোষের বিনিময়ে, সদস্যদের সরকারী, রাষ্ট্রীয় এবং সরকারী বেসরকারি অনুষ্ঠানে, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে আনসার সদস্যদের অস্থায়ী নিয়োগ দেয়া হয়। এবারো তার কোন ব্যতিক্রম হয়নি, গলাচিপা উপজেলার আসছে ১৫’ই মে চিকনিকান্দী ইউনিয়নের উপ নির্বাচনকে ঘিরে, প্রতিটি সেন্টারে
আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের তালিকা তৈরী করলেও, উৎকোষ দিতে নাপেরে, অবসর ও বেকারত্বের ঘানী টানছেন, প্রায় অর্ধ শত ট্রেনিং প্রাপ্ত আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা নারী ও পরুষ। ঘটনার সত্যতার বিষয়ে চিকনিকান্দী ইউনিয়নের ১৯৭১ সালের ট্রেনিং ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন আনসার কমান্ডার আব্দুল মন্নান, প্রতিবেদককে জানান। আরো জানা যায়
বিনাবেতনে জনসেবা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবন্ধন করে আসছি, আমাদের শরীলে সরকারী খাকী পোষাক পরলে, আমাদের সততা ও বিশ্বাস নিয়ে পবিত্র দ্বায়ীত্ব আসছি। কিন্তু, গলাচিপা উপজেলা আনসার ভিডিপি’র অফিসারের ঘুষ বানিজ্যে ও দূর্নীতির কারনে, আজ আমরা ট্রেনিং প্রপ্ত আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা সদস্যরা কর্মবঞ্চিত বলে প্রতিবেদককে জানান অসহায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষার সুবিধা বঞ্চিত সদস্যরা।
ভূক্ত ভোগী আনসার আনসার কমান্ডার আব্দুল মন্নান, আরো জানান, এ বিষয়ে, পটুয়াখালী জেলা কমান্ডার, আমাকে কল করে বিস্তারির জানতে চেয়েছেন। আমি চুন্নু স্যারের সব অনিয়মের কথা জানিয়েছি। তিনি এ অনিয়মের বিষয়ে আইনী প্রদক্ষেপ নিবেন বলে, আমাকে শান্তনা দেন।
এ বিষয়ে গলাচিপা উপজেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা অফিসার মোঃ চুন্নু মিয়ার কাছে উৎকোষ ও অনিয়মের কথা জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে উড়িয়ে দেন। অন্যদিককে এ ব্যাপারে পটুয়াখালী জেলা আনসার ভিডিপি ও গ্রাম প্রতিরক্ষা কমান্ডিং অফিসার মোঃ ফিরোজ আহমেদের সাথে, মুঠোফোনে জানতে চাইলে, তিনি তা রিসিভ করেননি। বর্তমান সমাজের ‘আমি এবং আমার অফিস দূর্নীতি মুক্ত” করার বিষয়ে সরকারী ও বেসরকারি অফিস সহ জনসাধারন এগিয়ে আসবেন এটাই আগামী দিনের প্রত্যাশা বলে জানিয়েছে সর্বস্তরের জনসাধারণ।
Attachments area

মন্তব্য

মন্তব্য