গাজীপুরের কোন্দলে আ’লীগের ভরাডুবি বিএনপি-২, স্বতন্ত্র-১

সাইফুল আলম সুমন, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন এলাকার মত গাজীপুর সদর উপজেলার তিন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সুষ্ঠ শান্তিপূর্ণ এই নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিকের কোন প্রার্থী জয়লাভ করতে পারেনি। ভাওয়ালগড় ও মির্জাপুর ইউনিয়নে ধানের শীষ ও পিরুজালী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়লাভ করে।
আওয়ামীলীগের ঘাটি হিসেবে পরিচিত গাজীপুরে আওয়ামীলীগের এই ফল বিপর্যয় মানতে পারছেন না দলের কর্মী সমর্থকরা। তাদের মতে গাজীপুর ৩ আসনের দলীয় কোন্দল, নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে অনিয়ম, ও তৃনমূলের মতামতকে গুরুত্ব না দেয়ায় ভরাডুবির মূল কারন।
ভাওয়ালগড় ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি সমর্থিত সালাউদ্দিন সরকার নির্বাচনের কিছুদিন আগে আওয়ামীলীগে যোগ দেন। এর পরেই তাকে এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেয়া হয়। যা দলের তৃনমূলের নেতাকর্মীরা মেনে নিতে পারেনি। এখানে বিএনপির আবু বকর সিদ্দিক ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে ১৪ হাজার ১০০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সালাউদ্দিন সরকার পান ১৩ হাজার ৯৩৫ ভোট।
পিরুজালী ইউনিয়ন পরিষদে বর্তমান আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ সরকার এবার দলীয় মনোনয়ন পাননি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে ৬ হাজার ৩৩৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে মাসুদুল কবির ৩ হাজার ১৬৯ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকেন।নৌকা প্রতিকের জালাল উদ্দিন ২ হাজার ৪৯৮ ভোট পেয়ে তৃতীয় হন।
মির্জাপুর ইউনিয়নে বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী ফজলুল হক মুসুল্লি ৫ হাজার ৩১১ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেন। আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিকের মোশারফ হোসেন দুলাল ৫ হাজার ৩০২ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থান লাভ করেন।
স্থানীয়দের মতে নির্বাচনের তফসিল ষোষনার পর থেকেই আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের কোন্দল দেখা দেয়। এর জেরেই তিনটি ইউনিয়ন পরিষদেই বিদ্রোহী প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ নেয়। আর এতেই বিভক্ত হয়ে যায় দুই গ্রুপ। আওয়ামীলীগের দলীয় কোন্দলে বিএনপির প্রার্থীরা জয়ের মুখ দেখে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অভিমত প্রকাশ করেন, ইউনিয়ন পরিষদের মত তৃনমূল পর্যায়ের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটারদের কাছে প্রতীকের চাইতে প্রার্থী/ব্যাক্তির মূল্যয়ন অনেক বেশি। অযোগ্য ও অপ্রত্যাশিত ব্যক্তিদেরকে নৌকা প্রতীক দেওয়ায় পরাজয়ের মূল কারন।
এ বিষয়ে গাজীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ বলেন, নির্বাচনের প্রতিটি ইউনিয়নেই ছিল বিদ্রোহী প্রার্থী। এদের কারনেই মূলত দলীয় প্রার্থীরা সামান্য ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে। তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনকে টার্গেট রেখে আমাদের দলীয় বিবেধ মিটানোই প্রধান কাজ। সে লক্ষেই আমরা কাজ করছি।

মন্তব্য

মন্তব্য