লোকজনের সামনেই এক মেয়েকে বেধরক মারধর করছে তিনজন পুলিশ।

অনলাইন ডেস্ক
দেশে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা প্রদানে গড়ে উঠেছে পুলিশ বিভাগ। বিশ্বের সব দেশের পুলিশ বিভাগের একই উদ্দেশ্য। তাই পুলিশকে বলা হয়ে থাকে রক্ষক। কিন্তু এই পুলিশ বাহিনীর নিষ্ঠুরতার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতে দেখা যাচ্ছে পুলিশের তিন সদস্য মিলে এক মেয়েকে নিষ্ঠুরভাবে মারধর করছেন। ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরপরই নানা প্রশ্ন উঠেছে ফেসবুকে।

ভিডিওটি দেখে অনেকেই মন্তব্য করেছেন যে, রক্ষক যখন ভক্ষক হয় তখন মানবতা বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে যায়।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, রাস্তায় চলাচলরত লোকজনের সামনেই এক মেয়েকে বেধরক মারধর করছে তিনজন পুলিশ। উৎসুক জনতা এটা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছেন। এসময় এক উৎসুক জনতা তা ভিডিও করেন। তবে ভিডিওর শেষে সেই উৎসাহী জনতার দিকে পুলিশের এক সদস্যকে তেড়ে আসতে দেখা যায়।

ওই মেয়েটির প্রতি নিষ্ঠুরতার ওই ভিডিওটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

মাফিয়া আফরিন নামে এক নারী ফেসবুকে ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘পুলিশকে রক্ষক মনে করা হলেও তারাই বর্তমানে সবচেয়ে আতঙ্কের নাম। রক্ষক যখন ভক্ষক হয় তখন মানবতা বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ে যায়। এদের বিরুদ্ধে এখনই রুখে দাঁড়ান, না হলে আজ ওই মেয়ে, কাল আপনি আমি সবাই এর স্বীকার হতে পারি’

মোস্তফা মঈন নামে একজন লিখেছেন, ‘পুলিশ তাদের পেশাদার আচরণ ভুলে সন্ত্রাসী ও ক্যাডারের আচরণ করছে। এজন্যই পুলিশকে এখন আর কেউ সম্মান দেয় না। বরং সুযোগ পেলে ফ্লাইং কিক মারে।’

সাইফুল ইসলাম সাইফ ফেসবুকে লিখেছেন, ‘এই সব পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত সকলকে ও তাদের সন্তানদের জানাই অন্তরের অন্তস্থল থেকে ভালবাসা(!) দোয়া করি আপনাদের সন্তানদের যেন এইভাবে জানোয়ারের মত কেউ না মারে!’

ভিডিওটি কোথাকার বা মেয়েটিকে কেন মারা হচ্ছে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে, ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর কয়েকটি গণমাধ্যমে পুলিশের কর্মকর্তারা জানান, ঘটনার সময় ওই রাস্তা দিয়ে খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির যাতায়াতের কথা থাকায় ওই মেয়েকে সরানোর চেষ্টা করা হচ্ছিল। বড় একটি ব্যাগ নিয়ে বসে থাকা ওই মেয়েটি সরতে না চাইলে এই ঘটনা ঘটে। পরে ব্যাগটি পরীক্ষা করা হয়েছে।

কিন্তু যে যাই বলুক না কেন, ভিডিওটি ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়ে ফেসবুকে ঘুরছে এবং পুলিশের ভূমিকা নিয়ে নানা প্রশ্নবানে জর্জরিত করা হচ্ছে।

মন্তব্য

মন্তব্য