‘পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় রয়েছেন’ মেয়র আনিসুল

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হকের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতির দিকে। এখন তার রিহ্যাবিলিটেশন (পুনর্বাসন) চলছে। হাত-পা ও পেশির ব্যায়াম করানো হচ্ছে, নিয়মিত ফিজিওথেরাপি দেয়া হচ্ছে।

 

বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকাটাইমসকে এ তথ্য জানান আনিসুল হকের মালিকানাধীন নাগরিক টেলিভিশনের কর্মকর্তা আবদুন নূর তুষার।

 

তুষার বলেন, ‘আনিসুল হককে এত দিন হাই-ডোজের ওষুধ দেয়া হয়েছে ঘুমিয়ে রাখার জন্য। টানা তিন মাস ধরে তিনি (আনিসুল হক) প্রায় ঘুমের মধ্যে ছিলেন। দিনে গড়ে ৩/৪ ঘণ্টা হয়তো জেগে থাকেন, বাকি সময় তিনি ঘুমিয়েই থাকেন।’

 

‘দীর্ঘ সময় ধরে ঘুমিয়ে থাকার কারণে রিহ্যাবিলিটেশনের জন্য তাকে অন্য বিশেষায়িত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দর্শনার্থী যাওয়া-আসা করলে ইনফেকশন হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই দর্শনার্থীদের বিষয়ে কিছুটা কড়াকড়ি রয়েছে।’

 

তবে আনিসুলের পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ফিরে আসার বিষয়টি আরও সময়সাপেক্ষ বলেও জানান নাগরিক টেলিভিশনের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘সব মিলিয়ে আরও কয়েক মাস পর জানা যাবে তার (আনিসুল হক) শারীরিক পরিস্থিতি আসলে কেমন। যেসব ওষুধ দেয়া হয়েছে সেগুলোর উপকারিতা-অপকারিতাও বোঝা যাবে তখন। তবে প্রথম দিকে যে অবস্থা ছিল, সেটির তুলনায় মেয়র বর্তমানে কিছুটা ভালো আছেন।’

 

এক প্রশ্নের জবাবে তুষার বলেন, ‘কবে নাগাদ তিনি দেশে ফিরবেন সে বিষয়ে এখনই আমি কিছু বলতে পারব না।’

 

গত ২৯ জুলাই ব্যক্তিগত সফরে সপরিবারে লন্ডনে যান আনিসুল হক। সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৩ আগস্ট তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে মেয়রের পারিবারিক সূত্র জানায়, তিনি মস্তিষ্কের রক্তনালীর প্রদাহজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

 

প্রথমে মেয়র আনিসুলকে লন্ডনের ন্যাশনাল নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। গত ৩১ অক্টোবর তাকে ওই হাসপাতালের আইসিইউ থেকে কেবিনে দেয়া হয়। এর পরই লন্ডনের আরেকটি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় তাকে।

মন্তব্য

মন্তব্য