পাহাড়িদের বাড়িতে আগুন

স্থানীয় যুবলীগের এক নেতার মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে গুজব ছড়িয়ে রাঙামাটি জেলার লংগদু উপজেলা সদরের চারটি গ্রামের পাহাড়িদের ২০০ ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া অত্যন্ত ন্যক্কারজনক ঘটনা। আমরা জোরালো ভাষায় এই ঘটনার নিন্দা জানাই এবং অপরাধীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি করছি।
প্রথম আলোর খবর অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে খাগড়াছড়ি সদরের চার মাইল এলাকায় রাস্তার পাশের জঙ্গল থেকে লংগদু উপজেলার সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সেদিন সকালে মোটরসাইকেলে দুজন যাত্রী নিয়ে তিনি লংগদু থেকে খাগড়াছড়ি গিয়েছিলেন। স্থানীয় বাঙালিদের অভিযোগ, নুরুল ইসলামকে পাহাড়ি কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হত্যা করেছে। এ ঘটনার পর আট হাজার লোক বিক্ষোভ মিছিল করলেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রশাসন বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে দায়িত্ব শেষ করেছে। এটি কোনোভাবে গ্রহণযোগ্য নয়।
ঘটনার দিন যেসব পাহাড়ি প্রাণের ভয়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন, তাঁরা ফিরে এসে দেখেন তঁাদের ঘরবাড়ি ভস্মীভূত। ঘরবাড়ি হারিয়ে অনেকে উন্মুক্ত আকাশের নিচে ঠাঁই নিয়েছেন। অবিলম্বে তাঁদের পুড়ে যাওয়া ঘরবাড়ি পুনর্নির্মাণ ও পূর্ণ নিরাপত্তার দাবি জানাই। স্থানীয় প্রশাসন দুর্বৃত্তদের হানা থেকে পাহাড়িদের ঘরবাড়ি রক্ষা করতে পারেনি। এখন যদি অপরাধীদের ধরতে পারে, সেটি এই সান্ত্বনা থাকবে যে কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নন এবং অপরাধ করলে শাস্তি পেতেই হবে। অন্যদিকে পরিস্থিতি যাতে স্বাভাবিক থাকে সে জন্য প্রশাসনকে সার্বক্ষণিক নজর রাখতে হবে। এ ব্যাপারে পাহাড়ি-বাঙালিনির্বিশেষে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।
ঘটনার পর লংগদুতে পাহাড়ি ও বাঙালিদের উপস্থিতিতে শান্তি সমাবেশ হয়েছে। এ ধরনের সমাবেশে সব শ্রেণি ও পেশার মানুষকে যুক্ত করতে হবে। নতুন করে যাতে কেউ সেখানে অঘটন না ঘটাতে পারে, সে জন্য প্রশাসনকে সজাগ থাকতে হবে। আক্রান্ত মানুষগুলোর মধ্যে আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনতে হবে।
উল্লেখ্য, ১৯৮৯ সালেও লংগদুতে একজন উপজেলা চেয়ারম্যানের হত্যাকে কেন্দ্র করে বহু পাহাড়ির ঘরবাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছিল। সে সময় অনেক পাহাড়ি পালিয়ে ভারতের ত্রিপুরায় গেলেও ১৯৯৭ সালের পার্বত্য চুক্তির পর তাঁরা দেশে ফিরে আসেন।
লংগদুতে আগুন দিয়ে ঘরবাড়ি পোড়ানোর ঘটনার পাশাপাশি যুবলীগ নেতা হত্যারও বিচার হোক। পাহাড়ে শান্তি ফিরে আসুক, এটাই সবার প্রত্যাশা।

মন্তব্য

মন্তব্য